Wednesday, October 27, 2021

যুবলীগ হবে মানবিক ও বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার অগ্রনায়ক


আহাম্মদ উল্লাহ মধূ :

বাংলাদেশের প্রথম যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। দেশের যুবকদের সংগঠিত করে মানবিক কাজে আত্মনিয়োগের লক্ষে ১৯৭২ সালের ১১ই নভেম্বর বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে শেখ ফজলুল হক মনি কর্তৃক বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ প্রতিষ্ঠিত হয়। বহু বছর ধরে এদেশের সকল জাতীয় আন্দোলন সংগ্রামে নিজেদের সম্পৃক্ত করেছে যুবলীগ। আদর্শ আর মানবিকতার ফুলজুড়ি বিলিয়েছে সর্বদা। তবে সম্প্রতি কিছু বহিরাগত নেতাকর্মীদের বিতর্কিত কর্মকান্ডে সমালোচিত হয়েছে সংগঠনটি। পরবর্তীতে তড়িৎ সিদ্ধান্তে বিতর্কিত নেতাদের বহিস্কার করে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে সোপর্দ করে সুপ্রাচীন এই সংগঠনকে ঢেলে সাজানোর দায়িত্ব নিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। অসাম্প্রদায়িক রাজনীতির শ্রেষ্ঠ দার্শনিক বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের আত্মপ্রকাশ ঘটে। বহুবিধ প্রতিভার অধিকারী মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শেখ ফজলুল হক মনি আদর্শিক চেতনায় যুবলীগ প্রতিষ্ঠার মধ্যদিয়ে বাঙালি জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিপেক্ষতা ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় সদ্যস্বাধীন বাংলার যুবসমাজকে ঐক্যবদ্ধ করে অপশক্তির সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দেন।
সেই থেকে দীর্ঘ লড়াই সংগ্রামের মধ্যদিয়ে ঐতিহ্য এবং সাফল্যের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ গৌরবময় ৪৮ বছরে পদার্পণ করেছে।
যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে আধুনিক কাঠামোয় পুনর্গঠন, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির লক্ষ্যে আত্মপ্রত্যয়ী প্রগতিশীল যুবশক্তিকে কাজে লাগাতে একটি যুবসংগঠন প্রতিষ্ঠা ছিলো সময়ের দাবি। কারণ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশকে ধ্বংসস্তুপ থেকে পুনঃনির্মাণের কাজে বাঙালিরা ছিল দৃঢ়ভাবে ঐক্যবদ্ধ। ঠিক তখনই বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের মোড়কে জাসদ সৃষ্টি করে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের এজেন্ডা বাস্তবায়নের অংশ হিসাবে দেশের যুবসম্প্রদায়ের বৃহৎ একটা অংশকে বিপথগামী করার চক্রান্ত শুরু হয়। সমাজকে বিশৃংখল করে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি কায়েমসহ দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে আবারো হুমকির মুখে ফেলার নতুন ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছিলো স্বার্থান্বেষী একটি চিহ্নিত মহল। এমন প্রেক্ষাপটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু মুজিবের পরামর্শে ও প্রত্যক্ষ দিক-নির্দেশনায় দেশের যুবসমাজকে সুসংগঠিত সুশৃংখল যুবশক্তিতে পরিণত করতে শেখ ফজলুল হক মনি ১৯৭২ সালে ১১ নভেম্বর, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। প্রখর রাজনৈতিক দূরদর্শীসম্পন্ন ডায়নামিক যুবনেতা শেখ ফজলুল হক মনির হাত ধরে সেই থেকে মানবিক যুবলীগের পথচলা।
শেখ ফজলুল হক মনি ৪ ডিসেম্বর, ১৯৩৯ সালে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগ্নে ছিলেন শেখ মনি। রাজনীতির পাশাপাশি সাংবাদিকতায় ব্যাপক খ্যাতিলাভ করেন। মহান স্বাধীনতাযুদ্ধে তাঁর প্রত্যক্ষ নির্দেশে ও তত্ত্বাবধানে গঠিত হয় রণাঙ্গনের অন্যতম সশস্ত্র গেরিলা বাহিনী। শেখ ফজলুল হক মনি ব্যক্তিজীবনে দুই পুত্র সন্তানের জনক ছিলেন। বর্তমান আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস শেখ মনির গর্বিত উত্তরাধিকার। ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট, সেই নারকীয় হত্যাকা-ে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুসহ শেখ ফজলুল হক মনি ও তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বেগম আরজু মনি শাহাদাৎ বরণ করেন। জাতির এই শ্রেষ্ঠ সন্তানদের গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণসহ তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করছি।
পিতার আদর্শিক চেতনায় যুবলীগ প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য সামনে রেখে দেশপ্রেম ও সাধারণ মানুষের স্বার্থ রক্ষায় মানবিক যুবলীগের সুখ্যাতি অর্জনে সংগঠনের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ সর্বাধিক মনোনিবেশ করেছেন। অর্থাৎ অতীতের সকল অনাকাঙ্খিত বিতর্ক পেছনে ফেলে জাতির পিতার আদর্শ বাস্তবায়নে শেখ মনির প্রতিষ্ঠিত যুবলীগ অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বেগবান থাকবে।
দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাকালীন মূল উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে গত এক বছরে মানবিক কর্মকা-ের মধ্যদিয়ে যুব-রাজনীতিকে সবোর্চ্চ গুরুত্ব দিয়েছেন পরশ-নিখিল পরিষদ। তাদের প্রত্যক্ষ দিক-নির্দেশনায় অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে তৃণমূল পর্যায়ের যুবলীগ নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে বৈশ্বিক মহামারি করোনা সংকটে সারা দেশে যুবলীগের মানবিক কর্মকান্ড দেশবাসীর আস্থা অর্জনে সামথ্য হয়েছে।
যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে সামস্ পরশের নির্দেশনায় মাঠপর্যায়ে সকল কর্মসূচি বাস্তবায়নে নিরলস কাজ করেছেন সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল। মানবিক কাজে দেশবাসীর আস্থা অর্জন করায় সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সন্তুষ্টি প্রকাশ করে জাতীয় সংসদে যুবলীগের ভূয়সী প্রশংসা করেন।
সাংগঠনিক নেত্রীর এমন অনুপ্রেরণায় যুবলীগকে আদর্শিক জায়গায় ফেরাতে আরো দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন সংগঠনের শীর্ষ এই দুই যুবনেতা। সম্মেলনের মধ্যদিয়ে দায়িত্ব পাওয়ার পর প্রথমে অসহায়-দুস্থ জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন তারা। শুরুতেই শীতবস্ত্র নিয়ে ছুটে যান শীতার্তদের সেবায়। প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ দেশের যেকোনো সংকট মোকাবিলায় মানবিক যুবলীগ এখন পীড়িত মানুষের ভরসাস্থলে পরিণত হয়েছে। একইভাবে করোনা সংকটকালীন মানবিকতার সর্বোচ্চ দৃষ্টান্ত অব্যাহত রেখেছে পরশ-নিখিলের নেতৃত্বাধীন আওয়ামী যুবলীগ। গত ২৬ মার্চ দেশে অঘোষিত লকডাউন শুরু হলে তাৎক্ষণিক খাদ্য সহায়তা কর্মসূচি গ্রহণ করে কর্মহীন মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত ও হতদরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়ার আহ্বান জানান যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে সামস্ পরশ। সেই লক্ষ্যে মাঠপর্যায়ে মানবিক এই কর্মসূচি বাস্তবায়নে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিরলস কাজ করেন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল। এসময় বিভিন্ন শ্রমজীবী, প্রতিবন্ধী, হিজড়া, বেদে সম্প্রদায়সহ অসহায় মানুষকে খাদ্যসামগ্রী (চাল, ডাল, তেল, আলু, লবণ, সবজি, দুধ) ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করা হয়। সারাদেশে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে চল্লিশ লাখের বেশি মানুষকে খাদ্যসহায়তা এবং করোনা ভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রী মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হেক্সিসল ও সাবান পৌঁছে দেয়া হয় প্রায় এক কোটি জনসাধারনের দোরগোড়ায়। মানবিক যুবলীগঃ যুবলীগের মানবিক কর্মকান্ডের সুফল ইতোমধ্যেই ভোগ করতে শুরু করেছে দেশের মানুষ। করোনা মোকাবিলায় মানবিক কর্মসূচি নিয়ে শুরু থেকেই তৎপর রয়েছে যুবলীগ। সারাদেশে নানা কার্যক্রম নিয়ে মাঠে নেমেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অন্যতম এই সহযোগী সংগঠন। কর্মহীন অসহায় মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের পাশাপাশি টেলিমেডিসিন সেবা ও ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসসহ বিভিন্ন কার্যক্রম চলমান। কেন্দ্রের পাশাপাশি সংগঠনের কয়েকটি জেলা কমিটি নিয়েছে ব্যতিক্রমী কর্মসূচি তথা ‘ভ্রাম্যমাণ বাজার’ ও ‘ডক্টরস সেফটি চেম্বার’। গত ৮ মার্চ, ২০২০ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পরই যুবলীগের মানবিক কর্মসূচি শুরু হয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশনায় মাঠে নেমে পড়েন নেতাকর্মীরা। যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের নেতৃত্বে দেশজুড়ে শুরু হয় ব্যাপক কার্যক্রম। জননেত্রী শেখ হাসিনা দল ও সহযোগী সংগঠনগুলোকে সারাদেশে ত্রাণ কমিটি গঠন করে অসহায়, দুস্থ ও কর্মহীন মানুষের তালিকা তৈরি ও ত্রাণ কার্যক্রম জোরদারসহ প্রশাসনকে সহযোগিতার নির্দেশও দেন। সবমিলিয়ে মানবিক যুবশক্তিতে রূপান্তরিত হয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ যুবরাজনীতিতে এক নতুন সম্ভাবনা যুবজাগরণ সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছে।
পিতা শেখ ফজলুল হক মনি যে ডায়নামিক যুব-সংগঠনের বীজ বপন করেছিলেন- ৪৮বছর পর তারই সুযোগ্য উত্তোরাধিকার শেখ ফজলে সামস্ পরশের হাত ধরে “মানবিক যুবলীগ” আজ বাংলার ঘরে ঘরে গরীব-দুঃখি মানুষের শেষ ভরসাস্থলে পরিণত হয়েছে। যুবলীগ প্রতিষ্ঠাতা শেখ মণির গর্বিত সন্তান বর্তমান যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ পরশ এবং তার সুযোগ্য সহযোদ্ধা বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং রাজনৈতিক দৃঢ় সংকল্পে যুবলীগ আজ মানবিক সংগঠন হিসেবে সার্বজনীন স্বীকৃতি অর্জন করেছে। উন্নত সমৃদ্ধ ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা রতœ চিনতে ভুল করেননি। তারই উৎকৃষ্ট উদাহরণ বর্তমান মানবিক যুবলীগের উদ্ভাবক দুই যুবরতœ শেখ ফজলে সামস্ পরশ এবং মাইনুল হোসেন খান নিখিল। এই দুই প্রজ্ঞাবান রাজনৈতিকের হাতধরে মানবিক যুবলীগের আবির্ভাব দেশের তরুণ যুবসমাজ ও প্রজন্মের জন্য ৪৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনন্য উপহার। মানবিকতার এইধারা অব্যাহত রেখে আত্মপ্রত্যয়ী তরুণ যুবসম্প্রদায়ের মানবিক পাঠশালা হবে যুবলীগ। এই প্রত্যাশা রেখে ইতিহাস ও ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সফলতা কামনা করছি। মুজিববর্ষে যুবলীগের পক্ষে মানুষের শ্রদ্ধা ও সম্মানকে ধরে রাখার লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছেন প্রতিটি কর্মি। যুবলীগের সাংগঠনিক নেত্রী শেখ হাসিনার আস্থা ও ভালোবাসার ভ্যানগার্ড হবে যুবলীগ। এই বিশ্বাস আর প্রত্যয় সকলের।

পরশের পরশে আলোকিত যুবলীগ
“আমার চেষ্টা থাকবে যুব সমাজ যেনো আই হেটস পলিটিকস থেকে বেরিয়ে এসে জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু বলে দেশের কাজে নিজেদের নিয়োজিত রাখে”– এইতো সেদিনের কথা, ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর বিকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনিস্টিটিউট মিলনায়তনে সপ্তম কংগ্রেসের দ্বিতীয় অধিবেশনে চেয়ারম্যান হিসেবে নাম ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এভাবেই যুব সমাজের মধ্যে নতুন প্রাণের সঞ্চার করেছিলেন যুবলীগ প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শহীদ শেখ ফজলূল হক মণির সুযোগ্য উত্তরসূরি শেখ ফজলে শামস পরশ। চেয়ারম্যান হিসেবে নয়, একজন কর্মী হিসেবে আপনাদের পাশে থাকতে চাই -এমন বক্তব্যে প্রথম দিনেই যুব সমাজের আশা আকাঙ্খার প্রতীকে পরিণত হন গতানুগতিক রাজনীতির বাইরে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনার পেশায় জড়িত থাকা শেখ ফজলে শামস পরশ। মাত্র ৬ বছর বয়সে ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট সেই কলংকিত রাতে হারান প্রিয় মা-বাবাকে। বাবার হাতে গড়া সংগঠন যুবলীগের দায়িত্ব নিয়ে প্রথম দিনেই যুব সমাজের মনিকোঠায় আবেগ আপ্লুত বক্তব্যে স্থান করে নেন শেখ পরশ। তার এই নতুন পথযাত্রায় যোগ্য জুটি হিসেবে যুক্ত হন ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল। দল ক্ষমতায়। মানবতার বাতিঘর বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদূরপ্রসারী নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ। রাজপথে নেই বিরোধী দলের কোনো অস্তিত্ব। দিবসভিত্তিক কর্মসূচি ছাড়া রাজপথ পাহাড়ার কোনো কর্মসূচি নেই। বছর জুড়ে ছিল যুব সমাজকে বঙ্গবন্ধুর দেশপ্রেমের আদর্শে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে নানামুখী পরিকল্পনার ছক যুবলীগের নতুন চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ আর সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের চিন্তা-চেতনায়। সাথে ইতিবাচক ধারায় ফিরিয়ে নিয়ে যুবলীগকে আদর্শিক ও মানবিক সংগঠনে পরিণত করতে একটি স্বচ্ছ কমিটি উপহার দেয়ার প্রত্যয়। মানুষ চাইলেই সব স্বাভাবিকভাবে হয় না । চলার পথে অনেক বাধা- অনেক বিপত্তি। সামনে কোনো আন্দোলন সংগ্রাম না থাকলেও বৈশ্বিক মহামারী করোনা সংক্রমণ নতুন পথে পরিচালিত করে যুবলীগকে। পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের চেয়ে তখন যুবলীগের নতুন নেতৃত্ব গুরুত্ব দেয় মানুষের পাশে থাকাকে। আন্দোলন- সংগ্রামে, সংকটে নেতৃত্বদানকারী যুবলীগ পরিণত হয় মানবিক সেবামূলক সংগঠনে। অসাম্প্রদায়িক রাজনীতির শ্রেষ্ঠ দার্শনিক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় বহুমূখী প্রতিভার অধিকারী মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শেখ ফজলুল হক মণি প্রতিষ্ঠা করেন আদর্শিক যুবলীগ। দীর্ঘ ৪৭ বছর পর নতুন করে তার সুযোগ্য উত্তসূরি শেখ পরশের মাঝে যুবলীগ খুঁজে পায় যুবলীগের স্বপ্ন পুরুষকে। নতুন কমিটির দায়িত্ব পাওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে বাড়তে থাকে শীতের প্রকোপ। যুবলীগের নেতাকর্মীরা শীতবস্ত্র নিয়ে মানবিক সহায়তার হাত বাড়ায় অসহায় ছিন্নমূল ও দরিদ্র মানুষের পাশে। এটা নতুন কমিটির কোনো সাফল্য নয়, আওয়ামী যুবলীগের রুটিন ওয়ার্ক মাত্র। শীতার্ত মানুষের পাশে যুবলীগ সবসময় থাকে। তবে অতীতের যে কোনো কমিটির চেয়ে তৎপরতার মাত্র একটু বেশি ছিলো। কিন্তু করোনা সংকটকালে জীবন বাজি রেখে মানবিকতার যে হাত বাড়িয়ে দিয়েছে যুবলীগ নি:সন্দেহে তা প্রশংসার দাবি রাখে। দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাকালীন মূল উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে গত এক বছরে মানবিক কর্মকা-কে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে যুবলীগের নতুন নেতৃত্ব। যুবলীগ চেয়ারম্যানের নির্দেশনা আর সাধারণ সম্পাদকের মাঠপর্যায়ে সমন্বয়ের মাধ্যমে মানবিকতার ইতিহাসে নতুন মাত্রা সংযোজন করেছে যুবলীগ। ঢাকা মহানগর উত্তর এবং দক্ষিণ যুবলীগের নেতাকর্মীদের তৎপরতা ছিলো চোখে পড়ার মতো। যুবলীগকর্মী নূর হোসেনরা যেভাবে রাজপথে জীবন দিতে পারে, তেমনি যেকোনো সংকটে জীবন বাজী রাখতে পারে যুবলীগ আবারো তা প্রমাণিত করোনা সংকটকালে। মানবিক কাজে দেশবাসীর আস্থা অর্জনে যুবলীগ কতটা সফল হয়েছে জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার বক্তব্যেই তা ফুটে উঠেছে। গত বছর ২৬ মার্চ দেশে অঘোষিত লকডাউন শুরু হলে তাৎক্ষণিক খাদ্য সহায়ক কর্মসূচি গ্রহণ করে যুবলীগ। বিরোধীদলের আন্দোলন-সংগ্রাম মোকাবেলা করতে না হলেও গত এক বছরে কম ধকল যায়নি যুবলীগের নতুন নেতৃত্বের উপর দিয়ে। একঝাঁক সাবেক ছাত্রনেতা, বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মেধাবী তরুণদের সমন্বয়ে ১৪ নভেম্বর যে বিতর্কমুক্ত কমিটি উপহার দিয়েছে যুবলীগের নতুন নেতৃত্ব পরশ- নিখিল পরিষদ, নিঃসন্দেহে বলা যায় মেধা ও তারুণ্য নির্ভর যুবলীগ পরিণত হবে এ দেশের যুব সমাজের প্রাণের সংগঠনে। পরশ পাথরের স্পর্শে সীসা বা ধাতু যেভাবে সোনা কিংবা রুপায় পরিণত হয়, তেমনি যুবরতœ পরশের ছোঁয়ায় যুবলীগের নেতাকর্মীরা খাঁটি সোনায় পরিণত হবে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়ন, যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ মণির আদর্শিক যুব সংগঠন যুবলীগের নেতা কর্মীরা শুধু মানবিক কাজেই নয়, যেকোনো ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরতœ শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত ভ্যানগার্ডের দায়িত্ব পালন করবে– এমন প্রত্যাশা মুজিবপ্রেমী সকল সৈনিকদের। যুবলীগ নেতারা মনে করেন, অতীতে যারা যুবলীগের সাইন বোর্ড ব্যবহার করে দলকে কলংকিত করেছেন তারা মানবসেবার রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়েছেন। দলের বর্তমান মানবিক কাজে থাকা যুবলীগ নেতারা দৃচভাবে বিশ্বাস করেন দেশের মানুষের সংকটকালীন সময়ে যুবলীগের হয়ে যারা কাজ করছেন এরাই প্রকৃত মুজিব আদর্শের শেখ ফজলুল হক মনির প্রতিষ্ঠিত যুবলীগের সৈনিক। করোনা আতংকের ঝুঁকি নিয়েই প্রতিদিন যুবলীগ নেতারা তাদের ত্রাণ বিতরণের মাধ্যমে যুবলীগের রাজনীতির মানবিক দিকটি তুলে ধরতে পারছেন নতুন প্রজন্মের সামনে। তাদের বিশ্বাস মানব কল্যাণের রাজনীতির মাধ্যমে অতীতের গ¬ানি মুছে যুবলীগের বর্তমান নেতৃত্ব শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার কাঙ্খিত লক্ষে পৌঁছতে সক্ষম হবে।

কর্মীদের পাশে যুবলীগ
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের ৭৫টি ওয়ার্ড ও প্রায় তিন শতাধিক ইউনিটের সুবিধাবঞ্চিত আট হাজার কর্মী-সমর্থকের মধ্যে ঈদ উপহার হিসেবে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। গত ৫ মে থেকে শুরু হয়ে ১০ দিন যাবৎ রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে এসব খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। সেসময় ১৫টি ওয়ার্ডের প্রায় এক হাজার ছয়শ’ কর্মী-সমর্থককে উপহার দেওয়া হয়। খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, তেল, আলু, ডাল, চিনি, পেঁয়াজ ও সেমাই।
যুবকদের নিয়ে পরিকল্পনাঃ ইতোমধ্যে যুবলীগের সম্মানিত চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করার ঘোষণা দিয়েছেন। যুবলীগ চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক, সারা বাংলাদেশের বেকার যুবকদের তথ্য সংগ্রহ, কাজের ক্ষেত্র, কাজের পরিধি ও পদ্ধতি নিয়ে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সপ্তম কংগ্রেসের শ্লোগান ছিল “পরিচ্ছন্ন রাজনীতি, যুবলীগের প্রতিশ্রুতি”। যুবলীগের বর্তমান নেতৃত্ব ইতিমধ্যেই যুবলীগকে পরিচ্ছন্ন রাজনীতির পাঠশালা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন এবং দেশরতœ শেখ হাসিনার সঠিক নির্দেশনায় বর্তমান নেতৃত্বের কঠোর পরিশ্রম ও সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে যুবলীগ তার সঠিক গন্তব্যের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে যুবলীগের শীর্ষ নেতারা। আর এরই প্রমাণ হাজির হয়েছে সমগ্র দেশবাসীর সামনে। মহান জাতীয় সংসদে, প্রাণপ্রিয় নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’র যুবলীগের কার্যক্রম নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ এরই এক উৎকৃষ্ট প্রমাণ।
যুবলীগের প্রতিটি নেতাকর্মী বর্তমান নেতৃত্বের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস নিয়েই যেকোনো কর্মসূচি পালনে দৃচ প্রতিজ্ঞ এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে সব ধরনের ত্যাগ স্বীকারে সদা প্রস্তুত। যুবলীগকে হতে হবে মানবিক ও পালন করতে হবে দেশ গড়ার অগ্রনায়কের ভূমিকা।
লেখক- সিনিয়র সহসভাপতি, ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) যুবলীগ।

Related Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী আজ

আজ (৪ অক্টোবর) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী। ১৯৬৪ সালে আজকের এই দিনে রাশিদা খানমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী আজ

আজ (৪ অক্টোবর) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী। ১৯৬৪ সালে আজকের এই দিনে রাশিদা খানমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন...

‘আইএমইডি’র নিবিড় পরিবীক্ষণ প্রতিবেদন করোনা দূর্যোগেও ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে ‘জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প’

তিন দশকে দেশে মাছের উৎপাদন বেড়েছে ২৫ গুণজাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে গণভবন লেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মাছের পোনা অবমুক্ত করে মৎস্য চাষকে...

Rajpath Bichitra E-Paper 28/09/2021

Rajpath Bichitra E-Paper 28/09/2021