Wednesday, October 27, 2021

ব্যাংকের টাকায় দানবীর কাদির মোল্লা!

তিতাসের ওয়েল্ডিং মিস্ত্রি থেকে শিল্পপতি

  • সরকারি চার ব্যাংকে ঋণ সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা
  • প্রণোদনাও পেয়েছেন ২৪০ কোটি

সৎভাবে ব্যবসা করে শিল্পপতি হয়ে থাকলে ওয়ান-ইলেভেনের পট পরিবর্তনের পর- যৌথ বাহিনীর দুর্নীতিবিরোধী অভিযান শুরু হলে কাদির মোল্লা আত্মগোপন করেছিলেন কেন? কারো মতে ‘তিতাসের ওয়েল্ডিং মিস্ত্রি কাদির মোল্লা নরসিংদী এলাকার অসংখ্য শিল্প প্রতিষ্ঠানে তিতাস গ্যাসের অবৈধ ও গোপন সংযোগ দিয়ে সরকারের কোটি কোটি টাকা লোকসান করিয়েছেন, বিনিময়ে অবৈধ সংযোগ গ্রহণকারী কারখানার মালিকদের কাছ থেকে মোটা অংকের মাসোহারা নিয়ে কালো টাকার পাহাড় গড়ে তোলেন। তাছাড়া প্রয়াত একজন রাজনীতিকের অবৈধভাবে অর্জিত বিপূল অর্থভা-ার গচ্ছিত ছিল কাদির মোল্লার কাছে, সুযোগ বুঝে কাদির সেগুলো আত্মসাৎ করে শিল্প গড়ে তোলেন। সস্তা জনপ্রিয়তা অর্জনের উদ্দেশ্যে কাদির মোল্লা দান-খযরাত করে নিজের বড়লোক হবার কাহিনি আড়াল করার চেষ্টা করেন। সুষ্টু তদন্ত হলে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসবে বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষক মহল।

রহস্যময় কাদির মোল্লা
দরিদ্র এবং অর্ধ শিক্ষিত একটা মানুষ বড়লোক কিংবা ধনী হতে পারে, সংসারে স্বাচ্ছন্দ্য ফিরিয়ে আনতে শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিকও হতে পারে কিন্তু একবারে বিনা পুঁজিতে দেশের সেরা শিল্পপতি হবার কাহিনি অবশ্যই অবিশ্বাস্য। সেই অবিশ্বাস্যকে সম্ভব করে দেখিয়েছেন নরসিংদীর কাদির মোল্লা। দেশে যারা রাতারাতি বড়লোক হয়েছেন তাদের ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা গেছে সবার জীবনেই রয়েছে কদর্যপূর্ণ ইতিহাস, সরকারি অর্থ ও সম্পদ আত্মসাৎ, চোরাকারবার, মাদক ব্যবসা ও মানবপাচার সমাজবিরোধী কার্যকলাপ। কাদির মোল্লার হঠাৎ করেই রাতারাতি শিল্পপতি বনে যাবার কাহিনি কারো জানা নেই। তিনি নিজে বলে বেড়ান যে, মাত্র ৪ টাকা পুঁজি নিয়ে ব্যবসা করে তিনি আজ এ পর্যায়ে এসেছেন, কিন্তু কি ব্যবসা করে কিভাবে এ পর্যায়ে এলেন সেই কাহিনি কখনো বলেন না- জানেনা কেউ।
ব্যবসায়ী আবদুল কাদির মোল্লার একসময় পুঁজি ছিল মাত্র চার টাকা। মানুষের জমিতে ও ইটখোলায় কাজ করে তিনি পুঁজি জমিয়েছেন। জীবনের প্রথম উপার্জন চার টাকা বিনিয়োগ করেছেন তার শিক্ষায়। তারপর তিন বছর টেকনিক্যাল এডুকেশন কোর্স করেন। সার্টিফিকেট নিয়ে চলে যান সিঙ্গাপুরে। সেখানে পাঁচ বছর চাকরি করেন।
তিনি বলেন ‘আমি মাত্র ৩৬০ টাকার জন্য এইচএসসি পরীক্ষা দিতে পারি নাই, আজ আমি হলাম দেশ সেরা শিল্পপতি! আব্দুল কাদির মোল্লা নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার পাঁচকান্দী গ্রামে ১৯৬১ সালের ৮ই আগষ্ট জন্মগ্রহণ করেন। পিতা আব্দুল মজিদ মোল্লা আর মাতা নূরজাহান বেগম। ১৯৭৪ সালে ৮ম শ্রেণীতে থাকা অবস্থায় বাবার মৃত্যু হয়।
মাত্র ৩৬০ টাকার জন্য দেওয়া হয়নি এইচএসসি পরীক্ষা। জীবনকে পরিবর্তনের আশায় শূন্য হাতে উঠে পরেন ঢাকাগামী বাসে কিন্তু ভাড়া না থাকায় বাসের হেল্পার নামিয়ে দেন নরসিংদীর ইটাখলা বাসস্ট্যান্ডে। ইটাখলায় দাঁড়িয়ে থাকা ময়মসিংহ থেকে আসা দিনমুজুরদের সাথে কামলা খাটেন অন্যের জমিতে। নিজেকে তৈরী করতে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে তাঁর। জীবন সংগ্রামের শুরুর দিকে কারিগরি শিক্ষা নিয়ে পাড়ি জমান সিঙ্গাপুর। পাঁচবছর পর দেশে ফিরে এসে চাকুরী করেন তিতাস গ্যাস কোম্পানিতে। এরপর হঠাৎ প্রতিষ্ঠা করেন থার্মেক্স গ্রুপ। আজ দেশের অন্যতম শীর্ষ ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান।

ব্যাংকের টাকায় দানবীর!
একজন সামান্য কর্মচারী কিভাবে এই শিল্প-প্রতিষ্ঠান গড়ে তুললেন সেই প্রশ্ন কারো জানা নেই। যতটকু জানা যায়- এক সময় ছিলেন তিতাসের মিটার রিডার। ছোটপদে থেকেই নানা অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল পরিমান বিত্তভৈবের মালিক হন। এরপর নিজ এলাকা নরসিংদীতে গড়ে তোলেন শিল্প। শিল্প গড়তে তাকে উদার হস্তে ঋণ দেওয়ার শুরু করে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিভিন্ন ব্যাংক। এভাবে ব্যাংক ঋণ নিয়ে গড়ে তোলেন থার্মেক্স গ্রুপ। একের পর এক কোম্পানি গড়ে নিতে থাকেন ঋণ। শুধু সরকারি চার ব্যাংক থেকেই হাতিয়ে নিয়েছেন প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা ঋণ। আবার এখন পাচ্ছেন সরকারের প্রনোদনা। মালিক হয়েছেন বেসরকারি একটি ব্যাংকের। সংশ্লিষ্টরা জানান, একের পর এক কোম্পানি গড়ে তুলে ঋণের পাহাড় গড়ছে থার্মেক্স গ্রুপ। সরকারি ব্যাংকের কাছ থেকে অল্প অল্প করে ঋণ নিয়ে শুরু করেছেন শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা। প্রথমে তার ঋণ গ্রহণ ধীরে ধীরে চললেও ২০১৫ সালের পর তা বাড়তে থাকে দ্রুতগতিতে। ইতোমধ্যে সরকারি ব্যাংকের ঋণের টাকায় মালিক হয়েছেন বেসরকারি ব্যাংকের। এখন সরকারি-বেসরকারি সব ব্যাংক থেকেই নিচ্ছেন বিপুল পরিমান ঋণ। ইতোমধ্যে তার ঋণের পরিমান ৩ হাজার ৪০০ কোটি টাকা অতিক্রম করেছে। আবার ঋণ নিয়ে এখন পাচ্ছেন সরকারি প্রণোদনাও।
বিভিন্ন ব্যাংক থেকে প্রাপ্ত থেকে তথ্যে দেখা যায়, তাকে সবচাইতে বেশি ঋণ দিয়েছে জনতা ব্যাংক। আব্দুল কাদির মোল্লার থার্মেক্স গ্রুপের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামে জনতা ব্যাংক ১ হাজার ৩৩২ কোটি টাকা। ব্যাংকটি একক ঋণগ্রহীতা সীমা লঙ্ঘন করে তাকে ঋণ দেয়। নানা সুবিধা নিয়েও গত বছরের জুনে তিনি খেলাপি হয়ে যান। পরে বিশেষ সুবিধায় সেই খেলাপি ঋণ পুনঃতফসিল করে কাদির মোল্লা।
আব্দুল কাদির মোল্লার ঋণ নিয়ে সর্বপ্রথম আলোচনায় আসে ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে। ওই বছর ৫০০কোটি টাকা বা তার চেয়ে বেশি অঙ্কের খেলাপি ঋণকে বিশেষ ছাড় দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। মাত্র ২ শতাংশ ডাউনপেমেন্ট দিয়ে ১২ ও ১৮ বছরের জন্য ঋণ পুনর্গঠনের সুযোগ পায় গ্রুপটি। ৬৬৭কোটি টাকা পুনর্গঠন করে। ওই সুবিধার শর্ত ছিল আর কোন সুবিধা দেওয়া হবেনা। কিন্তু ২০১৯ সালের জুনে খেলাাপি হয়ে যায়। পরে আবার বিশেষ ছাড়ে পুনঃতফসিল করে জনতা ব্যাংক। থার্মেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির মোল্লার সাথে বারবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি কথা বলতে রাজি হননি। বিষয়টি ব্যাংকের বলে তিনি ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

বেশি সুবিধা দিয়েছে সোনালী ব্যাংক
আব্দুল কাদির মোল্লাকে সরকারি ব্যাংকগুলো ঋণ সুবিধা বেশি দিয়েছে। সোনালী ব্যাংক থার্মেক্স গ্রুপের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ দিয়েছে ১ হাজার ১১৭ কোটি টাকা। অগ্রণী ব্যাংক দিয়েছে ৬৫১ কোটি টাকা এবং রূপালী ব্যাংক দিয়েছে প্রায় ৩০০ কোটি টাকা। তার ঋণের একটি বড় অংশ ঋণপত্রের (এলসি) বিপরীতে। যাকে ননফান্ডেড ঋণ বলা হয়। এক ব্যাংক বিল গ্যারান্টি দেয়। ওই বিল অন্য ব্যাংকে জমা দিয়ে নগদ টাকা তুলে নেন কাদির মোল্লা। এই পদ্ধতিতে সোনালী ব্যাংক থেকে সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় হলমার্ক গ্রুপ।
অগ্রণী ব্যাংকের এমডি মোহাম্মদ শামস উল ইসলাম বলেন, অবশ্যই নিয়ম মেনে ঋণ নিয়েছে। আমরা সরকারী ব্যাংক নিয়ম ছাড়া ঋন দিতে পারি না। থার্মেক্স গ্রুপের শুধু আমাদের সাথে ঋনের বিষয়টি নেই। তারা দেশের অন্যান্য ব্যাংক থেকেও ঋণ নিয়েছে। থার্মেক্স গ্রুপ দেশের বড় ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান।
থার্মেক্স গ্রুপের ১৪টি প্রতিষ্ঠানের নাম জানা গেছে। এগুলো হচ্ছে থার্মেক্স টেক্সটাইল, থার্মেক্স স্পিনিং, থার্মেক্স মেলাঞ্জ স্পিনিং মিল, থার্মেক্স নিট ইয়ার্ন, থার্মেক্স ইয়ার্ন ডায়িং, থার্মেক্স ইয়ার্ন ডাইড ফেব্রিক্স, থার্মেক্স ওভেন ডায়িং, থার্মেক্স চেক ফেব্রিক্স, সিসটার ডেনিম কম্পোজিট, ইনডিগো স্পিনিং, আদুরী অ্যাপারেলস, আদুরী ফ্যাশনস, আদুরী নিট কম্পোজিট ও থার্মেক্স কালার মিল।

বেনামেও ব্যাংক ঋণ-প্রণোদনাও দেদারছে
এসবের বাইরে বেনামেও তার ঋণ রয়েছে। ২০১৩ সালে রাজনৈতিক বিবেচনায় অনুমোদন পাওয়া সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার এন্ড কমার্স ব্যাংকের (এসবিএসি) উদ্যোক্তা শেয়ারহোল্ডার কাদির মোল্লা। ওই ব্যাংকের পরিচালক পদেও রয়েছেন তিনি। অন্য পরিচালকদের সঙ্গে যোগসাজোশ করে বেনামে কোম্পানি গঠন করে ঋণ হাতিয়ে নেন কাদির মোল্লা। পরে পরিচালকদের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হলে তারা বিষয়টি ফাস হয়ে যায়। পরিচালক পদ টিকিয়ে রাখতে চলতি বছরের শুরুর বেনামে ঋণ সম্পূর্ণ পরিশোধ করে দেন।
ঋণের পর এখন সরকার ঘোষিত প্রণোদনাও দেদারছে পাচ্ছেন কাদের মোল্লা। সরকারি চার ব্যাংক থেকে পেয়েছেন ২৪০ কোটি টাকা। ইতোমধ্যে সোনালী ব্যাংক থেকে ৮৪ কোটি, অগ্রণী ব্যাংক ৫৭ কোটি ও জনতা ব্যাংক থেকে ৪৭ কোটি প্রণোদনা পেয়েছেন। রূপালী ব্যাংক তাকে ৫২ কোটি টাকা দেওয়ার জন্য অনুমোদন করেছে। অন্য ব্যাংকগুলো থার্মেক্স অন্য প্রতিষ্ঠানের নামে আরও প্রণোদনা দেওয়া প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, সাধারনভাবে কোন ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে সিআইবি ক্লিয়ারেন্স আছে কিনা তা যাচাই করতে হয়। যাদের সিআইবি ক্লিয়ারেন্স নেই তাদের আমরা ঋণ দেই না। আর এইসব বিষয়ই ব্যাংক ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করেন। তাই যদি থার্মেক্স গ্রুপের ক্ষেত্রে কোন অনিয়ম হয় তাহলে খাতিয়ে দেখা হবে বলে জানান মো.সিরাজুল ইসলাম।

Related Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী আজ

আজ (৪ অক্টোবর) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী। ১৯৬৪ সালে আজকের এই দিনে রাশিদা খানমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী আজ

আজ (৪ অক্টোবর) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী। ১৯৬৪ সালে আজকের এই দিনে রাশিদা খানমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন...

‘আইএমইডি’র নিবিড় পরিবীক্ষণ প্রতিবেদন করোনা দূর্যোগেও ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে ‘জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প’

তিন দশকে দেশে মাছের উৎপাদন বেড়েছে ২৫ গুণজাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে গণভবন লেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মাছের পোনা অবমুক্ত করে মৎস্য চাষকে...

Rajpath Bichitra E-Paper 28/09/2021

Rajpath Bichitra E-Paper 28/09/2021