Thursday, January 27, 2022

ধনবাড়ি নবাব মঞ্জিল

ধনবাড়ি নবাব মঞ্জিল স্থানীয়ভাবে নবাব বাড়ি নামে পরিচিত। বর্তমানে নবাব আলী চৌধুরীর উত্তরসূরিরা এই রাজবাড়ির দেখাভাল করছেন এবং পর্যটকদের অবস্থানের জন্য তারা এখানে কয়েকটি কটেজও নির্মাণ করেছেন। বাংলাদেশের একমাত্র ঐতিহ্যবাহী রিসোর্ট এটি। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন এই রাজবাড়িতে বেশ কয়েকজন কর্মচারী সবকিছুর দেখাশোনা করছে। বাংলাদেশের বেশীরভাগ জমিদার বাড়ির মালিক ছিলেন হিন্দু জমিদারেরা। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর এবং ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের পর এদের মাঝে বেশীরভাগ প্রভাবশালী জমিদারেরাই দেশত্যাগ করতে বাধ্য হন অথবা ধর্মীয় গোঁড়ামির কারনে তাঁদের একঘরে করে দেওয়া হয়। এর ফলে এসব জমিদার বাড়ি অরক্ষিত অবস্থায় থেকে যায়। পরবর্তীতে কিছু জমিদার বাড়ি সরকার অধিগ্রহণ করে তাঁদের দাপ্তরিক কাজে ব্যবহার করলেও বাদবাকি জমিদার বাড়িগুলো অযতœ এবং অবহেলায় ধ্বংসের মুখে রয়েছে। ধনবাড়ি নবাব মঞ্জিল অন্যান্য জমিদার বাড়ির চেয়ে ভিন্ন। মুসলিম জমিদার এই বাড়িটির মালিক হওয়াতে তাঁদের দেশত্যাগ করতে হয়নি। তাঁরা তাঁদের শাসনকালে যেমন ক্ষমতাধর ছিল তেমনি এখনও নিজ নিজ অঞ্চলে তাঁদের প্রভাব বিদ্যমান। আর এ কারনেই তাঁদের মালিকানার জমিদার বাড়িগুলোর অবস্থা এখনও বেশ ভাল এবং এসব জমিদার বাড়ির যথাযথ যতœ ও রক্ষণাবেক্ষণ করা হচ্ছে। ১৯১৯ সালে ইংরেজ লর্ড রোনাল্ডশ্যকে আমন্ত্রন জানাতে নবাব আলী চৌধুরী এই জমিদার বাড়িটি নির্মাণ করেন। লর্ড রোনাল্ডশ্য স্টিমারে করে কয়ড়ার কাছে এসেছিলেন এবং তাঁকে ৩০টি হাতির মাধ্যমে অভ্যর্থনা জানানো হয়েছিল। নবাব পরিবারের একজন উত্তরসূরী নবাব হাসান আলী চৌধুরী পূর্ব পাকিস্তানের শিল্প মন্ত্রী ছিলেন। এছাড়া ১৯৭৮ সালে তিনি একজন সংসদ সদস্যও ছিলেন। নবাব হাসান আলী চৌধুরীর মৃত্যুর পর ১৯৮১ সালে তাঁর কন্যা সৈয়দা আশেক আকবর সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। উপরোক্ত তথ্য এই নবাব পরিবারের প্রভাব ও ক্ষমতা সম্পর্কে ধারনা দেয় এবং বুঝতে পারা যায় আজও কিভাবে এই নবাব মঞ্জিল এতোটা ভাল অবস্থায় রয়েছে। ধনবাড়ি নবাব মঞ্জিলে প্রবেশ করতে ৫০/- টাকা দামের টিকেট কাটতে হবে। প্রতিটি টিকেট নবাব মঞ্জিলে প্রবেশ করার দুই ঘণ্টা পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। নবাব মঞ্জিলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশ কঠোর এবং এখানকার কর্মচারীরা বেশ সাহায্যপরায়ন। এখানে বাইরের কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয় না তাই নির্বিঘেœ নবাব মঞ্জিল ঘুরে দেখা যায়। অফিস ভবন থেকে বেরিয়ে দক্ষিণ দিকে একটা প্রাচীর ঘেরা দেখা যাবে। প্রচীরের দরজা দিয়ে প্রবেশ করলে দেখা মিলবে নবাব মঞ্জিল বা নবাব প্যালেসের। নবাব মঞ্জিলের প্রাসাদটি চার গম্বুজ বিশিষ্ট ও দক্ষিণমুখী। দরজা ঠিক মাঝ বরাবর নয়। ভবনের কার্নিশে রয়েছে নানা ধরনের লতাপাতার নকশা। এই ভবনে রয়েছে চারটি বৃহৎ কক্ষ ও কিছু ক্ষুদ্রাকার কক্ষ। এসব কক্ষেও প্রবেশ করার অনুমতি নেই বললেই চলে। ভবনটি থেকে একেবারে পূর্বদিকে দেখা মিলবে শতাধিক বছরের পুরনো ৩০ বিঘা ভূমির উপর নির্মিত বিশাল দিঘী। দিঘীর পাড়ে রয়েছে ছায়ায় ঘেরা গাছপালার সমারোহ। দিঘীতে শীতকালে নানা ধরনের পাখি আসে। ফলে শীতকালে ভ্রমণে বাড়তি কিছু আনন্দ যোগ হয়ে থাকে। পুকুরে যাওয়ার আগে ভবনটির পূর্বদিকে লাগানো তোরণ দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করলে দেখা মিলবে দুটি আবাসিক ভবন, ফুলের বাগান, চিড়িয়াখানা, বৈঠকখানা, গোমস্তা, নায়েব, পাইক- পেয়াদার বসতি ঘর, কাচারিঘর এবং দাস-দাসীদের চত্বর। চিড়িয়াখানা থাকলেও সেখানে কয়েকটি পাখি ছাড়া কিছুই দেখা মেলে না। তোরণটি ব্রিটিশ লর্ডদের অভ্যর্থনা জানানোর জন্য তৈরি করা হয়েছিল।

Related Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী আজ

আজ (৪ অক্টোবর) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী। ১৯৬৪ সালে আজকের এই দিনে রাশিদা খানমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন...

‘আইএমইডি’র নিবিড় পরিবীক্ষণ প্রতিবেদন করোনা দূর্যোগেও ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে ‘জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প’

তিন দশকে দেশে মাছের উৎপাদন বেড়েছে ২৫ গুণজাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে গণভবন লেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মাছের পোনা অবমুক্ত করে মৎস্য চাষকে...