Thursday, January 27, 2022

আশুলিয়া সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে রাজস্ব ফাঁকির উৎসব


নিজস্ব প্রতিবেদক :

আশুলিয়া সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস দুর্নীতি ও অনিয়মের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। আশুলিয়া সাব- রেজিষ্ট্রি অফিসে ঘুষ ছাড়া কোনো কাজ হয়না। জমির নিবন্ধন, নামজারি, জমির শ্রেণি পরিবর্তনের নামে রাজস্ব ফাঁকি, জাল দলিলে জমি দখলসহ নানা ঘটনায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন ভুক্তভোগীরা। জমির দলিল আটকে রেখে ভুক্তভোগীদের চাপের মুখে ঘুষ দাবি করা ওমেদার মনির হোসেন এবং অফিস সহকারী ভারতী রাণীর নিয়মিত আচরণে পরিণত হয়েছে। ঘুষ আদায়ের কৌশল হিসেবে রুটিন মাফিক কাজ হিসেবে ওমেদার মনির হোসেন এবং অফিস সহকারী ভারতী রাণী দূর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিনত করেছেন আশুলিয়া সাব-রেজিস্ট্রি অফিসকে।
২০১৬ সালের ৭ই আগস্ট নিবন্ধিত ১০৭৩৩ নম্বর দলিলে আশুলিয়ার ধামসোনা মৌজায় ১৬ শতাংশ জমির শ্রেণি দেখানো হয়েছে পতিত জমি। তবে আশুলিয়া রাজস্ব সার্কেল থেকে সরবরাহ করা তথ্য অনুযায়ী ওই জমি ‘টেক ও চালা’ শ্রেণির । আশুলিয়ার ধনঞ্জয়পুর মৌজা থেকে ২০১৬ সালের ৮ আগস্ট নিবন্ধিত ১০৮৫৮ নম্বর দলিলে ৫৭ শতাংশ জমি হেবা মূলে দান দেখানো হয়। দলিল জমির শ্রেণি দেখানো হয়েছে জঙ্গল। কিন্তু আশুলিয়ার সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী এই জমি ‘বাঁশঝাড়, বাড়ি ও চালা শ্রেণির’। একই মৌজায় ১০৬৪০ নম্বর দলিলে ৫৮ শতাংশ জমির শ্রেণি পরিবর্তন করে ১০ লাখ ৭৮ হাজার ২৪০ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয়েছে। ২০১৬ সালের ৩ আগস্ট নিবন্ধিত ওই দলিলে জমির শ্রেণি দেখানো হয়েছে জঙ্গল। অথচ আশুলিয়ার সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী ওই জমি বাঁশঝাড়, বাড়ি ও চালা শ্রেণির। শ্রেণি পরিবর্তন করে একই বছর একই মৌজার ১০৮৫৭ নম্বর দলিলে ১০লাখ ৭৮ হাজার ২৪০ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয়েছে। ওই দলিলে বাঁশঝাড়, বাড়ি ও চালার পরিবর্তে জমির শ্রেণি দেখানো হয়েছে জঙ্গল। একইভাবে ১০৬৪১ নম্বর দলিলে জমির শ্রেণি পরিবর্তন করে রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া হয়েছে ৮ লাখ ১৮ হাজার টাক,া এই দলিলে জমির শ্রেণি দেখানো হয়েছে জঙ্গল। সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী ওই জমি বাঁশঝাড়, বাড়ি ও চালা শ্রেণির, জমির শ্রেণি পরিবর্তনের মাধ্যমে আশুলিয়ার তৎকালীন সাব-রেজিষ্ট্রার আবদুল করিম ও মহা দুর্নীতিবাজ ওমেদার মনির রাজস্ব ফাঁকির সুযোগ দিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ওমেদার মনির হোসেন এবং অফিস সহকারী ভারতী রাণী কোটি কোটি টাকার মলিক বনে গেছেন। অফিস সহকারী ভারতী রানী দূর্নীতির দায়ে সাময়িক বরখাস্ত হন বিগত তিনমাস আগে। কিন্তু অফিসে হাজিরার নামে পূর্বের ্রমতোই দলিলের কাজ সম্পাদন করে যাচ্ছেন দেদারছে। ওমেদার মনির চাকরির যোগদান হতে আশুলিয়ায় সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে কর্মরত আছেন। তার কোনো বদলী হয়না। সেই সুবাদে অসাধু দলিল লেখকদের একটি সিন্ডিকেট তৈরি করে সরকারের কোটি কোটি টাকা রাজম্ব বঞ্চিত করে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন দৈনিক ৬০টাকা মজুরিভিত্তিক ওমেদার মনির হোসেন। তার নিজ কুমিল্লা জেলার বুড়িরচং উপজেলায় ও রাজধানী যাত্রাবাড়ি এলাকায় নামে -বেনামে কোটি কোটি টাকার সম্পদের পাড়াড় গড়ে তুলেছেন ওমেদার মনির হোসেন। দুদক খতিয়ে দেখলে ঐ সকল অবৈধ সম্পদের খোঁজ মিলবে। বাংলাদেশ সরকারের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন ম্যানুয়াল-২০১৪ মানছেন না সদ্য যোগদানকৃত আশুলিয়া সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সাব-রেজিস্ট্রার রেজাউল করিম। নিবন্ধন ম্যানুয়াল অনুযায়ী সাব-রেজিস্ট্রার নিজেদের কাজ ওমেদার মনির হোসেন এবং ভারতী রাণীকে দিয়ে করাচ্ছেন। দলিল চেক করার কাজ সাব-রেজিস্ট্রার করার নিয়ম থাকলেও তা মানছেন না তিনি। আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন ম্যানুয়াল-২০১৪-এর অধ্যায়-২৬-এ উল্লেখ আছে যে, ওমেদার, অফিস সহকারীগণ কর্তৃক দলিল পরীক্ষাকরণ কাঙ্খিত নয়, এই কাজটি অবশ্যই স্বয়ং সাব-রেজিস্ট্রার কর্তৃক সম্পাদিত হতে হবে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক দলিল লেখক জানান ওমেদার মনির হোসেন এবং অফিস সহকারী ভারতী রাণী মোটা অঙ্কের ঘুষ ছাড়া কাজ হয়না। কাঠাপ্রতি ৫হাজার টাকা থেকে ৫০হাজার টাকা করে উৎকোচ দিতে হয় ওমেদার মনির হোসেন এবং অফিস সহকারী ভারতী রাণীকে। ভুক্তভোগীরা ওমেদার মনির হোসেন এবং অফিস সহকারী ভারতী রাণীর কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন আশুলিয়া সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে আসা দাতা এবং গ্রহীতাগণ নামজারি, খারিজ, জমির শ্রেণী পরিবর্তনসহ নানা কাজে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিয়ে দুর্নীতি করে আঙুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছেন ওমেদার মনির হোসেন এবং সাময়িক বরখাস্তকৃত অফিস সহকারী ভারতী রাণী। কাউকেই তোয়াক্কা করেন না ওমেদার মনির হোসেন। কার্যালয়ের নকল নবিশ ও মহরা পদবীর লোকদের চাকুরীচুত করার ভয়ও দেখান ওমেদার মনির হোসেন। কারন তার এক আত্মীয় আইজিআর আফিসে কর্মরত আছেন। মহাদুর্নীতিবাজ ওমেদার মনির হোসেন এবং অফিস সহকারী ভারতী রাণীর সিন্ডিকেটের ওমেদার ও নকলনবিশগণ বেপরোয়া হয়ে আশুলিয়া অফিসের সাব রেজিস্ট্রার রেজাউল করিম এর যোগসাজসে সরকারের কোটি কোটি টাকা রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে।

Related Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী আজ

আজ (৪ অক্টোবর) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী। ১৯৬৪ সালে আজকের এই দিনে রাশিদা খানমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন...

‘আইএমইডি’র নিবিড় পরিবীক্ষণ প্রতিবেদন করোনা দূর্যোগেও ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে ‘জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প’

তিন দশকে দেশে মাছের উৎপাদন বেড়েছে ২৫ গুণজাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে গণভবন লেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মাছের পোনা অবমুক্ত করে মৎস্য চাষকে...