Thursday, July 7, 2022

আব্বাসের বিস্ফোরক বক্তব্যে বিস্মিত ও ক্ষুব্ধ বিএনপি

বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলীর নিখোঁজ ইস্যুতে স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য মির্জা আব্বাসের বক্তব্য ব্যাপক আলোড়ন তুলেছে দলের ভেতর-বাইরে। নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে। কেন, কী কারণে এবং কাকে উদ্দেশ করে মির্জা আব্বাস এমন বক্তব্য দিয়েছেন- তা নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা।

এ ঘটনায় বিএনপির হাইকমান্ডও বিস্মিত ও ক্ষুব্ধ আব্বাসের ওপর। দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণ ফোরামের সদস্যের এ বক্তব্য সরকারকে ‘দায়মুক্ত’ হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে বলে মনে করছেন দলটির নেতাকর্মীরা। তাদের দাবি, মির্জা আব্বাস নিজের এবং দলের বড় ধরনের ক্ষতি করে ফেললেন, যা সহজে আর পুষিয়ে নেওয়া সম্ভব হবে না।

ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার ৯ বছর পূর্তির দিন গত শনিবার এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় মির্জা আব্বাস বলেছিলেন, ইলিয়াসকে আওয়ামী লীগ সরকার গুম করেনি। গুম হওয়ার আগের রাতে দলীয় অফিসে কোনো এক ব্যক্তির সঙ্গে তার মারাত্মক বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। এ ঘটনার পেছনে দলেরই অভ্যন্তরীণ লুটপাটকারী, বদমায়েশগুলো আছে। যদিও তার ওই বক্তব্যের পরদিনই গতকাল রোববার সংবাদ সম্মেলনে মির্জা আব্বাস দাবি করেছেন, ইলিয়াস আলী ইস্যুতে তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেটা সরকারকে কটাক্ষ করে বলা। তার মূল বক্তব্য ছিল, ইলিয়াস গুমের বিষয়ে সরকারকেই জবাব দিতে হবে। তার এ বক্তব্যকে গণমাধ্যমে বিকৃত করা হয়েছে।

মির্জা আব্বাসের বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সমকালকে বলেন, মির্জা আব্বাস সংবাদ সম্মেলন করে তার বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন। এর বাইরে তার আর কিছু বলার নেই।

বিএনপির উচ্চ পর্যায়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, এ ঘটনায় দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান চরম ক্ষুব্ধ হয়েছেন মির্জা আব্বাসের ওপর। মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে উদ্দেশ করে বক্তব্য দেওয়ায় তিনিও চরম বিব্রতবোধ করছেন।

বিএনপির বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতার সঙ্গে আলোচনা করে জানা গেছে, মির্জা আব্বাসের এ বক্তব্যের পর বিএনপিতে তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে। কারণ, এত দিন বিএনপি ইলিয়াস আলী নিখোঁজের জন্য ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে দায়ী করে আসছিল। কিন্তু আব্বাসের এ বক্তব্য তাদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি এনে দিয়েছে। বিএনপির ক্ষুব্ধ নেতারা মনে করছেন, মির্জা আব্বাসের এ বক্তব্যের মাধ্যমে সরকারের হাতে নতুন হাতিয়ার তুলে দেওয়া হয়েছে এবং ইচ্ছা করেই এ অস্ত্র তুলে দেওয়া হলো। এমন প্রেক্ষাপটে দলের সর্বোচ্চ হাইকমান্ড মির্জা আব্বাসকে সংবাদ সম্মেলন করে তার বক্তব্য স্পষ্ট করার নির্দেশনা দেন। নির্দেশিত হয়ে গতকাল রোববার এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে মির্জা আব্বাস দাবি করেছেন, তার বক্তব্যকে বিকৃতি করা হয়েছে, খণ্ডিত আকারে প্রকাশ করা হয়েছে।

বিএনপির নেতাকর্মীরা দু’দিন ধরে মির্জা আব্বাসের এ বক্তব্যের কারণ খুঁজে ফিরছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন উপায়ে ৯ বছর পর হঠাৎ করে তার এমন বক্তব্য নিয়ে নানা কৌতূহল প্রকাশ করছেন। যদিও মির্জা আব্বাস প্রভাবশালী সিনিয়র নেতা হওয়ার কারণে নেতারা প্রকাশ্যে এ নিয়ে কোনো বক্তব্যই দিচ্ছেন না। তবে সবারই কৌতূহল, গুমের আগের দিন ইলিয়াস আলী কার সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডা করেছিলেন, দলীয় নেতাদের মধ্যে তেমন কেউ কি সত্যিই আছেন, যিনি গুমের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারেন।

বিএনপির কোনো কোনো নেতার দাবি, ইলিয়াস আলী গুমের আগের দিন রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ের একজন ‘প্রভাবশালী কর্মকর্তা’র সঙ্গে প্রচণ্ড ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়েন। ইলিয়াস সেদিন তাকে মারতে উদ্যত হন। ওই কর্মকর্তাকে অনেকেই ‘একটি রাষ্ট্রের এজেন্ট’ হিসেবে ইঙ্গিত করে থাকেন। হয়তো মির্জা আব্বাস গুলশান কার্যালয়ের ওই কর্মকর্তাকেই ইলিয়াস ইস্যুতে জড়িত করেছেন।

তবে সবকিছুর পরও দলের গুরুত্বপূর্ণ একজন নেতা ইলিয়াস আলীর গুমের বিষয়ে সরকারকে দায়ী না করে মির্জা আব্বাস দলের রাজনীতির বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন বলে অনেক নেতা মনে করছেন। তারা দাবি করছেন, মির্জা আব্বাসের এ বক্তব্যে সরকারকে ‘ক্লিনচিট’ দেওয়া হয়েছে। যে পরিপ্রেক্ষিতে এবং ইলিয়াস আলীর সন্ধানের দাবিতে বিএনপি দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করেছে, তাকেই তিনি প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন।

বিএনপির একজন এমপি নাম প্রকাশ না করার শর্তে সমকালকে বলেন, এ বক্তব্য দিয়ে জাতীয় সংসদ কিংবা বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে বিএনপির কার্যক্রমকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে। তাদের বক্তব্য দেওয়ার পরিসরকে সীমিত করে ফেলা হয়েছে। এ বক্তব্যের ফলে বিএনপি নতুন এক সমস্যার মধ্যে উপনীত হয়েছে। ক্ষুব্ধ নেতারা দাবি করেন, মির্জা আব্বাস নিজের বলয়ের বাইরে দলের স্বার্থে কোনো চিন্তা করেন না। ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সদস্য সচিব হিসেবে দলের যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেলকে তিনি একদিনও মহানগর অফিসে বসতে দেননি। দলের প্রতিটি অঙ্গসংগঠনের কেন্দ্রীয় ও ঢাকা মহানগরের সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদকের পদে তিনি তার বলয়ের একজনকে অযোগ্য হলেও স্থান করে দিতে হাইকমান্ডকে বাধ্য করেন। যেখানে সুযোগ পান, সেখানে নিজের গ্রুপের নেতাদের পদায়ন করে বলয় শক্তিশালী করার চেষ্টা করেন। ঢাকা মহানগরের সভাপতি থাকা অবস্থায় মরহুম সাদেক হোসেন খোকার বিরুদ্ধে তিনি নানা বিষোদ্গার করেছেন। অথচ তাকে আহ্বায়ক করার পর নগরীতে একটি মিছিলও করেননি।

অবশ্য মির্জা আব্বাসের পক্ষে কয়েকজন নেতার যুক্তি, প্রত্যেক নাগরিকের নিরাপত্তা দেওয়া রাষ্ট্র ও সরকারের দায়িত্ব। সেই নিরাপত্তায় যে-ই বিঘ্ন ঘটাবে, তাকে চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনা সরকারের কর্তব্য। বিএনপির নেতারা এই অপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকলে এতদিন কেন কাউকে আইনের আওতায় আনা হয়নি। আবার একজন নাগরিক হিসেবে ইলিয়াস আলীর নিরাপত্তা কেন দেওয়া হয়নি কিংবা তাকে কেন ফিরিয়ে দেওয়া হয়নি। ইলিয়াস আলীকে ফিরে পাওয়ার জন্য তার স্ত্রী তার পরিবারসহ বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন। তার কাছে আকুতি জানিয়েছিলেন। সরকার যদি স্বচ্ছ অবস্থানেই থাকে, তাহলে ইলিয়াস আলীকে কেন ফিরে পাওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল ঢাকার বনানী থেকে গাড়িচালক আনসার আলীসহ নিখোঁজ হন এম ইলিয়াস আলী। বিএনপি অভিযোগ করে আসছে তাকে সরকারই ‘গুম’ করেছে।

Related Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles

পুনর্গঠিত হলো বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগ

সভাপতি আলহাজ্জ্ব ফেরদৌস স্বাধীন ফিরোজ : সাধারণ সম্পাদক এড. মো: ফারুক উজ্জামান ভূইয়া টিপু আকাশ বাবু:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি রাজনৈতিক সহযোগী সংগঠন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক স্বাধীন...

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

Rajpath Bichtra E-Paper: 20/10/2021

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী আজ

আজ (৪ অক্টোবর) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ৫৭তম বিবাহ বার্ষিকী। ১৯৬৪ সালে আজকের এই দিনে রাশিদা খানমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন...

‘আইএমইডি’র নিবিড় পরিবীক্ষণ প্রতিবেদন করোনা দূর্যোগেও ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে ‘জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প’

তিন দশকে দেশে মাছের উৎপাদন বেড়েছে ২৫ গুণজাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে গণভবন লেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মাছের পোনা অবমুক্ত করে মৎস্য চাষকে...